অর্থপাচার সারা দুনিয়াতেই হয়। তবে আমাদের এখানে পাচারের হার একটু বেশি। আর এর জন্য আমরাও দায়ী। জমির সরকারি মূল্য আমরা কমিয়ে রেখেছি। আর সেজন্যই তা হচ্ছে। বললেন অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আব্দুল মুহিত।

শনিবার সকালে সিলেটের নাইওরপুলে একটি ফোয়ারা উদ্বোধন শেষে সাংবাদিকদের তিনি এসব কথা বলেন।

অর্থমন্ত্রী বলেন, বিদেশে টাকা পাচাররোধে দেশের জমির বর্তমান সরকারি দাম বাজার দর অনুযায়ী পরিবর্তনের চিন্তা ভাবনা করছে সরকার। এছাড়া অর্থপাচার বন্ধেও ব্যবস্থা নিতে যাচ্ছে।খুব শিগগিরই জমির সরকারি দাম বাড়িয়ে বাজার দর করা হবে। উদাহরণ দিয়ে তিনি বলেন, কেউ এক কোটি টাকার জমি বিক্রি করলে সেখানে সরকারি দাম হয় ৩০ লাখ। বাকী ৭০ লাখ কালো টাকা হয়ে যাচ্ছে।

দিন দিন রেমিটেন্স প্রবাহ কমছে। সে বিষয়ে সাংবাদিকরা প্রশ্ন করলে অর্থমন্ত্রী বলেন, দু’টি কারণে রেমিটেন্স কমতে পারে। প্রথমত যারা বিদেশে থাকছেন তাদের অনেকেই সেখানে স্থায়ীভাবে বসবাসের প্রক্রিয়া করছেন। দ্বিতীয়টি হলো অনেক প্রবাসীর অভিযোগ আছে রেমিটেন্স পাঠানোর ফি অনেক বেশি। তবে এই ফি আমরা কমিয়ে আনার চিন্তা ভাবনা করছি। সম্ভবত আগস্ট থেকে কমে যাবে এবং সেটা হবে নামমাত্র একটি ফি।

Share