কালীগঞ্জ (গাজীপুর) সংবাদদাতাঃ কালীগঞ্জ উপজেলার বক্তারপুর ইউনিয়নের ব্রাক্ষ্মণগাঁও সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক আব্দুল্লাহ আল মামুনকে পিটিয়ে আহত করেছেন উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা শামীম আহাম্মদ। আহত ঐ শিক্ষক উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসাধীন রয়েছেন। বিভিন্ন মহলের ক্ষোভ ও নিন্দা প্রকাশ।

জানা যায়, মঙ্গলবার বিকালে উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা শামীম আহাম্মেদ বালিগাঁও মডেল সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক মোঃ কাউছার মিয়াকে সাথে নিয়ে উপজেলার বক্তারপুর ইউনিয়নের ব্রাক্ষ্মণগাঁও সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় পরিদর্শণে যান। এ সময় তিনি প্রধান শিক্ষক আব্দুল্লাহ আল মামুনকে বিদ্যালয়ের বিভিন্ন তথ্য চাইলে প্রধান শিক্ষক বিদ্যালয়ের একজন সহকারী শিক্ষককে বলেন। এতে ঐ কর্মকর্তা রেগে গিয়ে শিক্ষক মামুনকে অশালীন ভাষা ব্যবহার করে বাক বিতন্ডায় জড়িয়ে পড়েন। এক পর্যায়ে শিক্ষা কর্মকর্তা প্রধান শিক্ষককে উদ্দেশ্য করে টেবিলে থাকা ষ্টাপলার ছুড়ে মারলে তিনি মাথায় রক্তাক্ত জখম হন। পরে অবস্থা বেগতিক দেখে উপজেলা শিক্ষা অফিসার পালিয়ে যান। সহকারী শিক্ষকরা আহত প্রধান শিক্ষক আব্দুল্লাহ আল মামুনকে চিকিৎসার জন্য কালীগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করেন।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক একাধিক শিক্ষক জানান, উপজেলা শিক্ষা অফিসার শামীম আহাম্মদ একজন দূর্ণীতি ও দাঙ্গাবাজ কর্মকর্তা। তিনি টাকা ছাড়া কিছুই বোঝেন না। শামীম কাপাসিয়ায় কর্মকালীন সময়ে নারী কেলেংকারীসহ বিভিন্ন দূর্ণীতিতে জড়িয়ে পড়েছিলেন।

এ বিষয়ে প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা শামীম আহাম্মদ ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে বলেন, উপজেলা নির্বাহী অফিসারের কার্যালয়ে উপজেলা চেয়ারম্যান মোয়াজ্জেম হোসেন’র উপস্থিতিতে বসে বিষয়টির মিমাংসা হয়েছে।

জেলা শিক্ষা অফিসার জানান, বিষয়টি আমি শুনেছি। শিক্ষা কর্মকর্তার বিরুদ্ধে তদন্তপূর্বক বিভাগীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

এ বিষয়ে উপজেলা র্নিবাহী কর্মকর্তা খন্দকার মোঃ মুশফিকুর রহমান বলেন, উপজেলা চেয়ারম্যানের উপস্থিতিতে উভয় পক্ষকে ডেকে বিষয়টি মিমাংসা করা হয়েছে।