টেকসই উন্নয়ন অভীষ্ট (এসডিজি) অর্জনে দুর্নীতিবিরোধী আন্দোলন ও সুশাসন কার্যক্রম পরিকল্পনা ও বাস্তবায়নে তরুণদের সক্রিয় অংশগ্রহণ নিশ্চিত করার আহ্বান জানিয়েছে ট্রান্সপারেন্সি ইন্টারন্যাশনাল বাংলাদেশ (টিআইবি)। আন্তর্জাতিক যুব দিবস ২০১৭ উপলক্ষে বুধবার সকালে ঢাকা বিশ^বিদ্যালয়ের ছাত্র-শিক্ষক কেন্দ্রে অনুষ্ঠিত এক মানববন্ধনে দুর্নীতিমুক্ত সুশাসিত সমাজ গঠনের মধ্য দিয়ে টেকসই উন্নয়ন অভীষ্ট অর্জনের দাবিতে টিআইবি ও টিআইবি’র তরুণ অংশীজনদের পক্ষ থেকে কিছু সুপারিশও উত্থাপন করা হয়।

মানববন্ধনে বক্তব্য রাখেন টিআইবি’র নির্বাহী পরিচালক ড. ইফতেখারুজ্জামান। অন্যান্যের মধ্যে টিআইবি কর্মী, সদস্য ও টিআইবি’র অনুপ্রেরণায় ঢাকার বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীদের নিয়ে গঠিত ইয়েস গ্রুপের সদস্যরা মানববন্ধনে অংশগ্রহণ করেন। ১২ আগস্ট আন্তর্জাতিক যুব দিবস উপলক্ষে এ বছর টিআইবি’র উদ্যোগে ‘দুর্নীতি প্রতিরোধ, সুশাসন ও টেকসই উন্ন্য়নে তারুণ্য’ প্রতিপাদ্যে জাতীয় পর্যায়সহ টিআইবি’র অনুপ্রেরণায় গঠিত দেশের ৪৫টি সচেতন নাগরিক কমিটি (সনাক) অঞ্চলে তরুণদের অংশগ্রহণে মানববন্ধন, র‌্যালি, সেমিনার, দুর্নীতিবিরোধী কার্টুন প্রদর্শনী ও পথনাটকসহ বিভিন্ন দুর্নীতিবিরোধী সচেতনতামূলক কার্যক্রম পরিচালনার উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে।

ড. ইফতেখারুজ্জামান বলেন, “সুশাসন প্রতিষ্ঠা ও দুর্নীতি দমন ব্যতিরেকে এসডিজি-১৬ অভীষ্ট অর্জন সম্ভব নয়। আর এজন্য দুর্নীতি নিয়ন্ত্রণ করতে হলে আইনের চোখে সকলেই সমান এই বিবেচনার পাশাপাশি রাজনৈতিক সদিচ্ছা থাকতে হবে এবং এই সদিচ্ছার বাস্তবায়ন করতে হবে, কেননা রাজনৈতিক সদিচ্ছা ছাড়া দুর্নীতি নিয়ন্ত্রণ সম্ভব নয়।”

ড. জামান আরো বলেন, “নির্বাচনী অঙ্গীকার, জাতিসংঘের দুর্নীতিবিরোধী সনদে অনুস্বাক্ষর, পঞ্চবার্ষিকী পরিকল্পনা, জাতীয় শুদ্ধাচার কৌশল প্রভৃতিতে সরকার ও সরকারের উচ্চ পর্যায়ের ব্যক্তিগণ দুর্নীতি দমন ও সুশাসন প্রতিষ্ঠায় যে অঙ্গীকারগুলো করেছেন তা শুধু কাগজে কলমে সীমাবদ্ধ না রেখে সেগুলোর বাস্তবায়ন করতে হবে।”

মানববন্ধনে টিআইবি ও টিআইবি’র তরুণ অংশীজনদের পক্ষ থেকে উত্থাপিত সুপারিশগুলোর মধ্যে উল্লেখযোগ্য হলো: জাতীয় যুবনীতি ২০১৭ এর দ্রুত বাস্তবায়নে সুনির্দিষ্ট পদক্ষেপ গ্রহণ ও সংশ্লিষ্ট তরুণ অংশীজনের অংশগ্রহণে তার পরিবীক্ষণ নিশ্চিত করা; যুবদের মধ্যে দুর্নীতিবিরোধী বিভিন্ন কার্যক্রম গ্রহণের মাধ্যমে দুর্নীতি প্রতিরোধের চাহিদা তৈরির পাশাপাশি নেতৃত্বের গুণাবলী বিকাশের লক্ষ্যে সুনির্দিষ্ট কার্যক্রম বাস্তবায়ন করা; সরকারি, বেসরকারি সকল ক্ষেত্রে চাকুরিতে নিয়োগ প্রক্রিয়া দুর্নীতিমুক্ত করে প্রকৃত মেধা ও যোগ্যতার ভিত্তিতে সমান প্রতিযোগিতার ক্ষেত্র নিশ্চিত করা; এবং মানবিক ও নৈতিক মূল্যবোধের বিকাশ ও চর্চার সম্প্রসারণ করে অশিক্ষা, অপশিক্ষা, কুসংস্কার ও ধর্মীয় ভ্রান্ত-ধারণায় বিপথগামী হওয়া থেকে যুব সমাজকে রক্ষায় সচেতনতামূলক প্রচারণা কার্যক্রম গ্রহণ করা।

Share