বৃহত্তর কুমিল্লায় বিএনপির (চট্রগ্রাম বিভাগ) সাবেক ছাত্রদলের চারজন সম্ভাবনাময় প্রার্থী হচ্ছেন বলে জানা গেছে। এদের মধ্যে তিনজনই যথাক্রমে অ্যাডভোকেট রফিক সিকদার ও ব্যারিস্টার ওবাইদুর রহমান টিপু ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের এবং মোরতাজুল করিম বাদরু জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ে জাতীয়তাবাদী ছাত্রদলের ৯০ এর গণআন্দোলনের সাবেক ছাত্রনেতা।

১)অ্যাডভোকেট রফিক শিকদার
ব্রাম্মণবাড়িয়া – ৬ ( বাঞ্ছারামপুর ) আসন ,
৯০ এর গণ আন্দোলনে ঢাকা বিশ্ব বিদ্যালয়য়ের সাবেক ছাত্রদল নেতা এবং
জাতীয়তাবাদী ছাত্রদলের সাবেক কেন্দ্রীয় নেতা ও বিএনপির
নির্বাহী কমিটির সদস্য অ্যাডভোকেট রফিক শিকদার ব্রাহ্মবাড়িয়া -৬ আসন থেকে মনোনয়ন
প্রত্যাশী , এই উপলক্ষে তিনি এলাকায় গণসংযোগ চালিয়ে যাচ্ছেন এবং এলাকার সাধারণ
মানুষের কাছে পরিচিত মুখ হিসাবে সুনাম অর্জন করেছেন ,

২)মোরতাজুল করিম বাদরু
কুমিল্লা – ৮ ( বরুড়া ) আসন ,
জাতীয়তাবাদী ছাত্রদলের সাবেক কেন্দ্রীয় নেতা ও জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্রনেতা এবং
জাতীয়তাবাদী যুবদলের সিনিয়র – সহ সভাপতি মোরতাজুল করিম বাদরু কুমিল্লা -৮ আসনে
মনোয়ন প্রার্থী , তিনি ইতিমধ্যেই এলাকায় যথেষ্ট জনপ্রিয় এবং দলের দুর্দিনে ঢাকা ও নিজ এলাকায়
কাজ চালিয়ে যাচ্ছেন ,

৩)ব্যারিস্টার ওবাইদুর রহমান টিপু
চাঁদপুর -২ ( মতলব উত্তর – দক্ষিণ )
নব্বই এর স্বৈরাচার বিরোধী আন্দোলনে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্রদলের সংগঠক ও অবিভক্ত
ঢাকা মহানগর জাতীয়তাবাদী ছাত্রদলের ( খায়ের ভূঁইয়া – পিন্টু কমিটি ) সাবেক সহ সভাপতি ও
অবিভক্ত মতলব থানা বিএনপির সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক এবং জাতীয়তাবাদী আইনজীবী
ফোরামের প্রতিষ্ঠাতা সদস্য ও মানবাধিকার আইনজীবী ব্যারিস্টার ওবাইদুর রহমান টিপু
চাঁদপুর -২ আসনে মনোনয়ন প্রার্থী , ইতিপূর্বে তিনি ১৯৯৬ সালে বিএনপি থেকে মনোনয়ন
চেয়েছিলেন , তিনি ছাত্রজীবন থেকেই মতলবে পরিচ্ছন্ন রাজনীতিবিদ হিসাবে গ্রহণযোগ্যতা
অর্জন করেছেন , এবং দলের দুর্দিনে আন্দোলন সংগ্রামে দেশে ও বিদেশে প্রচুর সময় দিয়ে যাচ্ছেন ,

৪)ডক্টর খন্দকার মারুফ হোসেন
কুমিল্লা -১ ( দাউদকান্দি – মেঘনা ) অথবা
কুমিল্লা -২ ( হোমনা – তিতাস ) আসন
কুমিল্লা জেলা বিএনপির ছাত্রবিষয়ক সম্পাদক এবং বিএনপির নির্বাহী কমিটির
সদস্য ও সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী ডক্টর মারুফ হোসেন , তিনি বিএনপির স্থায়ী
কমিটির সিনিয়র সদস্য ডক্টর খন্দকার মোশারফ হোসেনের কনিষ্ঠ পুত্র ,
তিনি তার পিতার আসন কুমিল্লা ১ ( দাউদকান্দি – হোমনা ) থেকে অথবা
শারীরিক বা অন্য কোনো কারণে বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য এম কে আনোয়ার
নির্বাচনে না আসলে সেখানে ডক্টর মারুফ হোসেন অথবা ডক্টর খন্দকার মোশারফ হোসেন
মনোনয়ন পাওয়ার সম্ভাবনা আছে , ইতিমধ্যে ডক্টর মারুফ হোসেন তার পিতার সাথে উভয়
আসনেই গণসংযোগ চালিয়ে যাচ্ছেন ,

Share